স্কাই আইটি ব্লগ💛 https://www.skyitblog.com/2023/07/blog-post_27.html

স্তন ক্যান্সারের লক্ষণ ও প্রতিকার - পুরুষের ব্রেস্ট ক্যান্সারের লক্ষণ

স্তন ক্যান্সার বাংলাদেশের নারী এবং পুরুষদের জন্য একটি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে তাই সকলেরই জেনে থাকা উচিত তন ক্যান্সার এর লক্ষণ এবং লক্ষণ দেখা দিলে করনীয় কি এ সম্পর্কে সকলের ধারণা থাকা উচিত তাই আজকের আর্টিকেলে আমি বলার চেষ্টা করেছি স্তন ক্যান্সারের লক্ষণ ও প্রতিকার সম্পর্কে এবং পুরুষদের বেস্ট ক্যান্সার হলে তাদের কি কি লক্ষণ দেখা দিতে পারে সে সম্পর্কে তাই স্তন ক্যান্সার সম্পর্কে জানতে হলে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি আপনি মনোযোগ সহকারে পড়ুন


আজকের আর্টিকেলটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ তাই আশা করি সবাই মনোযোগ সহকারে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়বেন এই স্তন ক্যান্সার সবচাইতে বেশি বিস্তার লাভ করছে কারণ স্তন সম্পর্কে অবজ্ঞার কারণে বা মানুষ এই সম্পর্কে জানে না এই জন্য তাই স্তন ক্যান্সারের প্রতি অবজ্ঞা না করে অবশ্যই মনোযোগ সহকারে আর্টিকেলটি পড়ে স্তন ক্যান্সার সম্পর্কে জেনে নিন

পোস্ট সূচিপত্রঃ স্তন ক্যান্সারের লক্ষণ ও প্রতিকার - পুরুষের ব্রেস্ট ক্যান্সারের লক্ষণ

ভূমিকা

ক্যান্সার একটি বহুল পরিচিত রোগ । সঠিক সময়ে রোগ নির্ণয় এবং চিকিৎসা না করা গেলে ক্যান্সারের কারণে মানুষের মৃত্যু পর্যন্ত হয়। শরীরের বিভিন্ন স্থানে ক্যান্সার হতে পারে । আবার এখন দেখা যাচ্ছে স্তন ক্যানসার এদের মধ্যে অন্যতম । স্তন ক্যান্সার অনেক সময়ে আমাদের শরীরে অবজ্ঞাতে বৃদ্ধি পায় কারণ আমাদের সেদিকে কোন লক্ষ্য থাকে না বা আমরা সে সম্পর্কে ধারণা রাখি না বিধায় এই রোগটি খুবই ভয়ানক আকার ধারণ করেছে বাংলাদেশের মানুষদের স্তন ক্যান্সার এখন একটি কমন রোগ হয়ে দাঁড়িয়েছে ।

বাংলাদেশের মানুষ এ রোগ সম্পর্কে ধারনা রাখে না বিধায় এ রোগটি এত বেশি বিস্তার করেছে তাই আমাদের ওয়েবসাইটে এ রোগ বিষয়ে আলোচনা করা । আসুন আমরা স্তন ক্যান্সার নিয়ে বিশদে আলোচনা করে এর সম্বন্ধে সচেতনতা বাড়াবার চেষ্টা করি ।

ব্রেস্ট ক্যান্সারের কারণ

স্তন ক্যান্সারে নারীদের মৃত্যুর হার সবচেয়ে বেশি । দেখা গেছে ৫০ বছরের বেশি বয়সী নারীদের এই স্তন ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি সবচাইতে বেশি থাকে । কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে শুধু নারীদের ক্ষেত্রে না এটি পুরুষদের ক্ষেত্রেও অনেক সময় স্তন ক্যান্সার পরিলক্ষিত হচ্ছে । যদিও পুরুষদের ক্ষেত্রে স্তন ক্যান্সার হওয়ার হার খুবই কম । এক হিসাবে দেখা যায় যুক্তরাজ্যে প্রতিবছর ৪১ হাজার মহিলা স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হন সেই তুলনায় মাত্র ৩০০ জন পুরুষ এই রোগে আক্রান্ত হয় তাই পুরুষদের চাইতে মহিলাদের এই রোগ রোগ নিয়ে চিন্তিত বেশি ।


স্তন ক্যান্সার রোগের ক্ষেত্রে ৫০ বছরের বেশি বয়সীদের ঝুঁকি সবচাইতে বেশি কারণ রিসেন্টলি একটি গবেষণায় দেখা গেছে যাদের স্তন ক্যান্সার হয় তাদের মধ্যে ৮০ ভাগেরই বয়স হচ্ছে 50 বছরের উপর সেই সাথে যাদের পরিবারের স্তন ক্যান্সার রয়েছে তাদেরও এই ক্যান্সার আক্রমণ হওয়ার সম্ভাবনা প্রচুর
জিনগত পরিব্যক্তি স্তন ক্যান্সারের ক্ষেত্রে কিছু কিছু জিনগত ব্যাপার-স্যাপার অনেক সময়েই দায়ী হয়ে থাকে ।

এমনকি সারা বিশ্বে পরিসংখ্যান অনুযায়ী 5-10% স্তন ক্যান্সার জিনগত পরিব্যক্তির কারণে হয়ে থাকে ডাক্তারি মতে যেসব মহিলাদের মায়েদের ৫০ বছরের আগেই স্তন ক্যান্সার ধরা পড়েছে তাদের ক্ষেত্রে স্তন ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা ১. ৭ শতাংশ বৃদ্ধি পায় যেখানে এই সংখ্যাটি নেমে 1. 4 শতাংশ হয়ে যায় সেই সব মহিলাদের ক্ষেত্রে যাদের স্তন ক্যান্সার ৫০ বছর বা তার পরে গিয়ে ধরা পড়েছে । আবার পরীক্ষা করে দেখা গেছে যেসব মহিলাদের আত্মীয়দের মধ্যে স্তন ক্যান্সার যথাক্রমে ৭.৮% 13.3% এবং ২১.১% ।

শুধু তাই নয় এসব ক্ষেত্রে স্তন ক্যান্সারের কারণে মৃত্যু হারের পরিমাণ যথাক্রমে 2.3% ৪.২% এবং ৭.৬ % । এমনকি যেসব মহিলাদের ফাস্ট ডিগ্রী আত্মীয় দের মধ্য যদি কারোর স্তন ক্যান্সার ধরা পড়ে তবে তাদের চল্লিশ পঞ্চাশ ৪০-৫০ বছরের মধ্য স্তন ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা সাধারণ মানুষের থেকে প্রায় দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়ে থাকে । ৫% এরকম ক্ষেত্রে দেখা যায় যে জিনগত পরিব্যক্তি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে

হিউম্যান প্যাপিলোমাভাইরাস

মহিলা বিশেষজ্ঞ ডাক্তার গণদের মতে হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাসের হানার অন্যতম কারণ অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ । গ্রাম অঞ্চল অনেক অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ হয়ে উঠেছে এমনকি শহরগুলো এখন অনেকটা অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ যেখানে সেখানে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের কারণে এবং ইয়ং মেয়েদের মধ্য আজকাল ধূমপান ও মদ্যপান প্রবণতা বেড়েছে । এতেও স্তন ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকিপূর্ণতা অনেকাংশে বেড়ে চলেছে ।
কিন্তু বাংলাদেশের এ রোগটি বহুল বিস্তারের অন্যতম কারণ হলো সচেতনতার অভাব ।

ব্রেস্ট ক্যান্সারের লক্ষণ

আমরা বেস্ট ক্যান্সার হওয়ার কারণ সম্পর্কে জানতে পারলাম আর বেস্ট ক্যান্সার বা স্তন ক্যান্সার হলে কি কি লক্ষণ দেখা দিতে পারে । আমরা কোন রোগের লক্ষণ সম্পর্কে যদি ধারণা রাখতে পারি তাহলে সে রোগ প্রতিকার করা যায় সে সম্পর্কে আগে থেকেই ধারণা থাকলে রোগ সনাক্ত করা যায় ফলে দ্রুত চিকিৎসাও করা যায় তাই চলুন জেনে আসি বেস্ট ক্যান্সার বা স্তন ক্যান্সার রোগের লক্ষণ গুলি 
  • নিপল থেকে হলুদ বা অন্য রঙের দুধ নির্গত হওয়াও স্তন ক্যান্সারের অন্যতম একটি লক্ষণ । এরূপ লক্ষণ পরিলক্ষিত হলে অবশ্যই একজন ভালো মহিলা বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে
  • যদি স্তনে ব্যথা যন্ত্রণার সাথে সাথে চুলকানি জ্বালাপোড়া হতে থাকে তাহলে অবশ্যই মেডিকেল চেকআপ করিয়ে নিন কারণ বেস্ট ক্যান্সারের শুরুর দিকের লক্ষণ এটি
  • কোনভাবে স্তনে গাঁটের মত হয়ে থাকলে অবশ্যই এটি ভয়ের কারণ । স্তন ক্যান্সারের শুরুর দিকে স্তনে গিটলি ভাব অনুভূত হওয়া এ রোগের প্রধান একটি লক্ষণ
  • যদি স্তনে ব্যথা অনুভূতি হয় তবে সতর্ক থাকতে হবে । ঋতুচক্রের সময়ে এই ব্যাথা থাকলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে
  • যদি বেস্ট এর নিপলে পরিবর্তন আসে এটি মোটেও হাল্কা ভাবে নেবেন না দ্রুত ভালো একটি জিজ্ঞাসা শরণাপন্ন হন এবং চিকিৎসা গ্রহণ করুন
এবং স্তন ক্যান্সারের আরো অনেক রকম লক্ষণ পরিলক্ষিত করা যায় যেমন
  • দীর্ঘদিন ব্যাথা অনুভূত হওয়া,
  • স্তনের আকার পরিবর্তন হওয়া,
  • গলার কাছে অথবা বগলে চাকা অনুভব করা,
  • স্তনের বোটা ভেতরে দিকে ঢুকে যাওয়া অথবা গোটা দিয়ে পুঁজ নির্গত হওয়া,
  • স্তনের ত্বকে বিভিন্ন পরিবর্তন যেমন কুঁচকে যাওয়া কমলার খোসার মতো ছোট ছোট ছিদ্র দেখা দেওয়া চামড়ায় টোল পড়া দীর্ঘস্থায়ী ঘা ইত্যাদিপুরুষের ব্রেস্ট ক্যান্সারের লক্ষণ
  • মহিলা এবং পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রে স্তন ক্যান্সারের লক্ষণগুলি একই । পুরুষদেরও যদি স্তনের নিচে ব্যাথা অনুভব স্তনের মাংসপেশীতে চাকার মত অনুভূতি হলে সেটি স্তন ক্যান্সারের লক্ষণ বুঝে নিতে হবে




পুরুষের ব্রেস্ট ক্যান্সারের লক্ষণ

পুরুষদের বেস্ট ক্যান্সার এর লক্ষণ গুলিও মহিলাদের বেস্ট ক্যান্সার লক্ষণের মতই মহিলাদেরও যে সকল প্রবলেম হয় দেখা যায় পুরুষদের বেশ ক্যান্সার হওয়ার পূর্বে একই লক্ষণ দেখা দেয় বিস্তারিত বলতে গেলে পুরুষদের ক্ষেত্রে যে সকল লক্ষণ সবচাইতে বেশি দেখা যায় নিচে তা আলোচনা করা হলো
  • স্তনে ব্যথাহীন কোনো পিণ্ড দেখা দেওয়া
  • স্তনের নিপল দিয়ে তরল পদার্থ বের হওয়া
  • স্তনের আশেপাশে গর্তের মতো হওয়া
  • স্তন বা স্তনের ত্বক বিবর্ণ হয়ে যাওয়া।
উপরের বর্ণিত প্রবলেমগুলো যদি আপনার ক্ষেত্রে পরিলক্ষিত হয় তাহলে অবশ্যই একটি ভালো ডাক্তার এর পরামর্শ নিতে হবে এবং আপনাকে মেডিকেল চেকআপ করিয়ে নেওয়া অত্যন্ত জরুরি

ব্রেস্ট ক্যান্সার হলে করণীয়

যেসব পরিবারের সদস্যদের স্তন ক্যান্সার হওয়ার ইতিহাস আছে , সেসব পরিবারের সদস্যদের ৩০ বছর বয়স থেকেই স্ক্রিনিং এর আওতায় আসতে হবে । আর যাদের পারিবারিক সদস্যদের স্তন ক্যান্সারের ইতিহাস নেই তাদের ক্ষেত্রে স্তনে চাকা হলে নিপল দিয়ে রস জাতীয় পদার্থ নির্গত হলে অবশ্যই একজন ভালো চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে এবং কমপক্ষে একটি আল্ট্রাসনোগ্রাম কুড়িয়ে নিতে হবে । এতে করে সেই ব্যক্তির স্তন ক্যান্সার হলে সনাক্ত করা যাবে এটির মাধ্যমে ।
  • লাম্পেক্টমি (lumpectomy): বেস্ট এর আশেপাশে কিছু টিস্যু কেটে এই অপারেশন করা হয় । টিউমার আকারে ছোট হলে এই অপারেশন করা হয়ে থাকে ।
  • মাস্টেক্টমি (mastectomy): এই অপারেশনে সম্পূর্ণ তন কেটে ফেলা হয় অথবা এর নিচে মাংসপেশি , বগলের লসিকাগ্ৰন্থি সহ আনুষাঙ্গিক আক্রান্ত টিস্যু কেটে ফেলা হয় । সাধারণত এই চিকিৎসা এখন আর তেমন করা হয় না কোন কোন রোগীর স্তনের চামড়া সংরক্ষণ করে বিকল্পভাবে স্তন পূর্ণ গঠন করা হয়।
  • রেডিও থেরাপি: এক্ষেত্রে সাধারণত একটি বড় মেশিনের সাহায্যে শরীরের দিকে লক্ষ্য করে তেজস্ক্রিয় রশ্মি প্রয়োগ করে ক্যান্সারের কোষ নির্মূল করা হয় ।
  • কেমোথেরাপি: যদি ক্যান্সার বেশি বড় আকার ধারণ করে সেক্ষেত্রে সার্জারির পূর্বে কেমো থেরাপি প্রয়োগ করা হয়ে থাকে এতে ক্যান্সার এর সাইজটা ছোট হয় । কেমোথেরাপি ক্যান্সার কোষ কে ধ্বংসকারী ওষুধ হিসাবে কাজ করে । যদি ক্যান্সার পুনরায় হওয়ার এবং শরীরের বিভিন্ন অংশের ছড়িয়ে পড়ার কোন আশঙ্কা থাকে তখন চিকিৎসক কেমোথেরাপি দেওয়ার পরামর্শ প্রদান করে থাকে যাতে করে শরীরের অন্য অংশে ক্যান্সার টি ছরিয়ে না পড়ে ।

ব্রেস্ট ক্যান্সার কি ভাল হয়

স্তন ক্যান্সার মানেই মৃত্যু এমন কথা এখন মানুষকে কুরে কুরে খাচ্ছে । সেই সঙ্গে স্তন ক্যান্সার মানে নারী শরীর থেকে একটি বিশেষজ্ঞ বাদ পড়ে যাওয়ার আতঙ্ক । কিন্তু এখন চিকিৎসা বিজ্ঞান প্রমাণ করেছে কিভাবে স্তন বাদ না দিয়েও বেস্ট ক্যান্সার সফলভাবে চিকিৎসা করা যায় এবং একজন নারীকে সম্পূর্ণভাবে সুস্থ অবস্থায় জীবনযাপন করার সুযোগ করে দেওয়া যায়
১৮৮০ সালে যখন কেমোথেরাপি চিকিৎসা চালু ছিল না তখন স্তন ক্যান্সার হলে অঙ্গবাদ দেওয়া ছাড়া কোন উপায় ছিল না । শুধু স্তন নয় তার নিজের মাংস এবং আশেপাশের কোষগুলো কেটে বাদ দিয়ে দিতেন চিকিৎসকরা । এরপর সত্তরের দশকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্তন বাদ না দিয়ে ক্যান্সারের চিকিৎসা করার প্রচেষ্টা শুরু হয় । কিন্তু ২০০০ সালে প্রথম কলকাতায় এস এস কে এম হাসপাতালে বেস্ট ক্যান্সারের অপারেশন করা হয় যেখানে ২০ থেকে ৩০% স্তন বাত দিলেও প্রায় ৭০% অবশিষ্ট রাখা সম্ভব হয়।
তাই বেস্ট ক্যান্সার হলেই যে মৃত্যু অবধারিত এমনটা মনে করার কোন কারণ নেই এখন আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞান ক্যান্সার এর বিভিন্ন প্রতিকারক ঔষধ এবং বিভিন্ন থেরাপি অপারেশন এর মাধ্যমে ক্যান্সার রোগের এবং বেস্ট ক্যান্সার এর চিকিৎসা আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছে কিন্তু এটি বাংলাদেশে একটু ব্যয়বহুল একটি চিকিৎসা পদ্ধতি

ব্রেস্ট ক্যান্সার স্টেজ ২ বাচার হার কত দিন

আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের মতে ক্যান্সার মানেই অবধারিত মৃত্যু নয় তাই সঠিক সময় রোগ শনাক্ত এবং চিকিৎসার মাধ্যমে এটি সম্পূর্ণ নির্মূল করা সম্ভব । বেস্ট ক্যান্সার স্টেজ ২ বাঁচার হাড় কতদিন ? এ প্রশ্নের সঠিক কোন উত্তর নেই । তবে অনুমান করা যায় স্টেজ ২ স্তন ক্যান্সারের রোগীরা সাধারণত গড়ে পাঁচ বছরের বেশি থাকার হার প্রায় ৯৩% । অর্থাৎ বেস্ট ক্যান্সার স্টেজ ২ এর রোগীদের বাঁচার হার ৯৩% ।
তবে যারা মোটামুটি আগে থেকে সচেতন যারা রোগ আগে থেকে শনাক্ত করতে পেরেছে এবং সঠিক চিকিৎসা গ্রহণ করেছে তাদের আরো ভালো ফলাফল পেয়েছে এরকম একটি গবেষণায় পরিলক্ষিত হয়েছে এবং তাদের বাঁচার হার আরো বৃদ্ধি পেতে পারে ।

ব্রেস্ট ক্যান্সার চিকিৎসা খরচ

বেস্ট ক্যান্সার একটি ভয়াবহ এবং মারাত্মক একটি রোগ এই রোগের কারণে মানুষের মৃত্যু আশঙ্কা বেশি থাকে এবং এই রোগের চিকিৎসা অত্যন্ত দুর্লভ একটি চিকিৎসা তাই বেস্ট ক্যান্সার রোগের চিকিৎসা খরচ অনেকটাই ব্যয়বহুল হয়ে থাকে ।
  • কলকাতায় বেস্ট ক্যান্সারের চিকিৎসার খরচ হয় প্রায় ১,৭০,০০০ থেকে ৭,০০,০০০ টাকা ।
বাংলাদেশের বেস্ট ক্যান্সার চিকিৎসায় সাধারণভাবে তিনটি চিকিৎসা পন্থা অবলম্বন করা হয় অস্ত্রপাচার, কেমোথেরাপি, ও রেডিও থেরাপি । ক্যান্সার বিশেষজ্ঞদের মতে সব সরকারি হাসপাতালে একবার রেডিওথেরাপি দেওয়ার জন্য ২৫ হাজার, কেমোথেরাপি দেওয়ার জন্য 20 হাজার এবং অস্ত্রপাচার এর জন্য ৬০ থেকে ৭০ হাজার খরচ হয়ে থাকে ।
  • মাস্টেক্টমি এই অপারেশনে সম্পূর্ণ তন কেটে ফেলা হয় অথবা এর নিচে মাংসপেশি , বগলের লসিকাগ্ৰন্থি সহ আনুষাঙ্গিক আক্রান্ত টিস্যু কেটে ফেলা হয় । সাধারণত এই চিকিৎসা এখন আর তেমন করা হয় না কোন কোন রোগীর স্তনের চামড়া সংরক্ষণ করে বিকল্পভাবে স্তন পূর্ণ গঠন করা হয়। এই সার্জারিটি ইন্ডিয়াতে করাতে আপনার মোটামুটি খরচের পরিমাণটি দাঁড়াবে প্রায় বাংলাদেশী টাকায় ৮৩,৮৫০ টাকা = রুপি 35,000 - টাকা 83,850 ( $ 424 - $ 10170 )

লেখক এর মন্তব্য

আসুন আমরা স্তন ক্যান্সার নিয়ে প্রচারণা করতে থাকে কারণ এই রোগটি বিশেষ করে অবজ্ঞার কারণে এবং এটি সম্পর্কে মানুষ পরিচিত না থাকার কারণে এটি বিশাল আকার ধারণ করেছে ।
তাই পোস্টটি শেয়ার করে আমাদের সাথেই থাকুন এবং আরো এমন তথ্যমূলক পোস্ট পেতে আমাদের ওয়েবসাইটের সাথেই থাকুন । ধন্যবাদ

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

#

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া